সদরপুরে কৃষি জমিতে ইটভাটা স্থাপনের প্রতিবাদে গ্রামবাসীর মানববন্ধন

নিজস্ব সংবাদদাতা, ফরিদপুর টাইমস:

ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার আকোটেরচর মৌজায় কৃষি জমিতে ইট ভাটা স্থাপনের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছেন গ্রামবাসী। আজ সোমবার বেলা ১১টার দিকে পিয়াজখালী বাজারের নিকটে বেপারীডাঙ্গি গ্রামে অনুষ্ঠিত এ মানববন্ধনে ওই গ্রামের কয়েকশ’ নারীপুরুষ অংশ নেন।

মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারীরা জানান, অসংখ্যবার নদী ভাঙ্গনের শিকার হয়ে তারা এগ্রামে থিতু হয়েছেন। তাদের গ্রামটি কৃষি প্রধান। এখানে ধান, পাট, রসুন ও পেঁয়াজসহ নানা ফসলের ভাল ফলন হয়। সম্প্রতি এই জমি বিনষ্ট করে একটি ইটভাটা স্থাপনের চেষ্টা চালাচ্ছেন একটি মহল।

মোঃ সুলতান খাঁ নামে ৮০ বছরের এক বয়োবৃদ্ধ কৃষক বলেন, এই ভাটা হলে পদ্মা নদী এগিয়ে আসবে। এতে তাদের ফসলী জমিরই শুধু ক্ষতি হবে না, বরং পরিবেশের উপরেও বিরুপ প্রভাব পড়বে।

রাবেয়া বেগম (৩৫) নামে এক নারী বলেন, ইতিপূর্বে তাদের গ্রামে বালু দস্যুদের কারণে পরিবেশের উপর মারাত্মক বিরুপ প্রভাব পড়েছিল। তখন গ্রামবাসীর বাঁধার কারণে প্রশাসন বেকু মেশিন জ্বালিয়ে দিয়েছিল। এখন তারা বালু লুট করতে না পেরে সেখানে নতুন করে ভাটা স্থাপনের চেষ্টা চালাচ্ছে। আমরা জেলা প্রশাসকের নিকট লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।

এব্যাপারে আকোটেরচর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মনিরুল হক চৌধুরী বলেন, কৃষি জমিতে ইটাভাটা হলে সেখানের প্রায় ৩ শতাধিক কৃষি পরিবার ক্ষতিগ্রস্থ হবে। ওই জমিতে নানা ধরণের ফসল হয়। আমরা চাইনা সেখানে কৃষি জমি বিনষ্ট করে ইটভাটা স্থাপন করা হোক।

এব্যাপারে ইট ভাটা স্থাপনকারী এখলাস ফকির দাবি করেন, তিনি কোন কৃষি জমি বিনষ্ট করে ইটভাটা করছেন না। গ্রামবাসীর অভিযোগ সঠিক নয়। তিনি নদীর মাটির বাইরে কোন ফসলী জমির মাটি ভাটায় ব্যবহার করবেন না।

ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার বলেন, এব্যাপারে গ্রামবাসীর পক্ষ হতে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।