September 25, 2020

নিশুর উপর হামলার ঘটনাকে অতিরঞ্জিত করতে ছিনতাইয়ের কথা ছড়ানোর অভিযোগ

বন্ধুদের সাথে রাহাত খান নিশুর তোলা এই ছবিটি ঘটনার দিনে তোলা বলে দাবি করা হয় যেখানে তার গলায় কোন চেইন ছিলনা দেখা যায়। ছবি- সংগৃহিত।

নিজস্ব সংবাদদাতা, ফরিদপুর টাইমস:

শহরের কমলাপুরের তেতুলতলায় ছাত্রদল নেতা রাহাত খান নিশুর উপর হামলার ঘটনাকে অতিরঞ্জিত করে সাজাতেই তার নিকট হতে হামলার সময় নগদ টাকা, আইফোন, অ্রান্ড্রুয়েড মোবাইল ফোন ও গলার সোনার চেইন ছিনিয়ে নেয়ার মিথ্যা প্রপাগান্ডা ছড়ানোর অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার সময় উপস্থিত একাধিক সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে জেলার শীর্ষ নেতৃবৃন্দও বিব্রত বলে জানা গেছে। তারা পরিস্থিতি একটু শান্ত হলে বিষয়টি ফয়সালা করবেন বলে জানিয়েছেন।

গত ২৮ আগষ্ট রাত ৯টার দিকে তেতুলতলার পাশে নিশুর উপর এ হামলা ঘটে। এব্যাপারে খোঁজ নিয়ে এ পরস্পরবিরোধী বক্তব্য পাওয়া যায়।

একটি সূত্র মতে, বেশকিছুদিন আগে নিশু একটি মোবাইল ফোন বিক্রি করতে চাইলে ছাত্রদলেরই আরেক নেতা তার এক পরিচিতর মাধ্যমে ওই মোবাইল বিক্রি করতে উদ্বুদ্ধ হয়। এরপর নিশুর সাথে মোবাইল বিক্রির জন্য যোগাযোগ করা হলে সে এখন আর টাকার দরকার নেই এই অজুহাতে মোবাইল বিক্রি করতে অসম্মতি জানায়।

অভিযোগ রয়েছে, এরপর নিশু পরিচিত ওই ব্যক্তির কাছে ছাত্রদলের ওই নেতার বিরুদ্ধে কুৎসামুলক নানা কথাবার্তা বলে। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে এ হামলা হয় বলে একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়। ওই সূত্র মতে, হামলা একটি ঘটনা ঘটলেও টাকা ও মালামাল ছিনিয়ে নেয়ার বিষয়টি তাদের কাছেও অতিরঞ্জিত মনে হয়েছে। এছাড়া হামলা দিনে নিশুর একটি ছবিও সরবরাহ করা হয়েছে যেখানে নিশুর গলায় কোন সোনার চেইন দেখা যায়নি।

এব্যাপারে সোমবার আবারও নিশুর সাথে যোগাযোগ করা হলে সে হামলার সময় সোনার চেইন, মালামাল ও নগদ টাকা ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগে অনঢ় থাকে। তবে কি কারণে এ হামলা এটিও সে নির্দিষ্ট করে জানাতে পারেনি।

এব্যাপারে জেলার শীর্ষ এক নেতা যিনি এ ঘটনার সাথে ওয়াকিবহাল রয়েছেন তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এটি দলের আভ্যন্তরীণ একটি ব্যাপার। আমরা বিষয়টি নিয়ে বিব্রত। দু’পক্ষের সাথে বসে বিষয়টি ফয়সালার চেষ্টা করবো। তিনি বলেন, যার উপর হামলা হয়েছে সেও আমাদের ঘনিষ্ট। আবার যাদের বিরুদ্ধে হামলা অভিযোগ উঠেছে, তারাও এভাবে টাকা ও মালামাল ছিনিয়ে নেয়ার মতো ছেলে নয়। তাছাড়া নিশুর নিকট হতে টাকা ও মালামাল ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগের সত্যতা অন্য কেউ নিশ্চিতও করেনি।

Please follow and like us
error0
Tweet 20
fb-share-icon20