Thu. Jan 23rd, 2020

ফরিদপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে দশ শত মোমবাতি প্রজ্বলন

নিজস্ব সংবাদদাতা, ফরিদপুর টাইমস:
ফরিদপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষে জেলা প্রশাসন ও বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে নানাবিধ কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়।

আজ শনিবার সকাল ৯টার দিকে শহরের শেখ জামাল স্টেডিয়াম সংলগ্ন গণকবরে পুস্পার্ঘ অর্পনের মধ্যে দিয়ে এ দিবসের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।

সকাল ৯টার দিকে শহরের শেখ জামাল স্টেডিয়াম সংলগ্ন গণকবরে পুস্পার্ঘ অর্পনের মধ্যে দিয়ে এ দিবসের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।

পুস্পার্ঘ অর্পন: ফরিদপুর-৩ (সদর) আসনের সাংসদ খন্দকার মোশাররফ হোসেনের পক্ষে প্রথমে পুস্পার্ঘ অর্পন করা হয়। পরে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, জেলা আ.লীগ, ফরিদপুর প্রেসক্লাব, সরকারি সারাদা সুন্দরি মহিলা কলেজ, সরকারি ইয়াছিন কলেজসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এর আগে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

সোয়া ৯টার দিকে টাউন থিয়েটারের উদ্যোগে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে ‘স্মৃতিতে অম্লান’ শিরোনামে এক অনুষ্ঠানের আযোজন করা হয়। এখানে ক্যালিওগ্রাফির মাধ্যমে ১৯৭১ সালে ১৪ ডিসেম্বর ঢাকার রায়ের বাজার বধ্যভূমির মর্মস্পর্শী দৃশ্যাবলী উপস্থাপন করা হয়।

এ উপলক্ষে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন জেলা প্রশাসক অতুল সরকার এবং বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন পুলিশ সুপার আলিমুজ্জামান। সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রোকসানা রহমান।

দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে আলোচনায় অংশ নেন, অধ্যাপক মো. শাহজাহান, সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের অধ্যক্ষ মোশার্রফ আলী, সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রিজভি জামান, সরকারি ইয়াছিন কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ এ এইচ ইসাহাক মিয়া প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ১৯৭১ সালে নিশ্চিত পরাজয়ের মুখে দখলদার পাকিস্তানী বাহিনী ও তাদের এদেশীয় দোষর আল বদর, আল শামস বাহিনী জাতিকে মেধাশূন্য করে দেওয়ার জন্য দেশের সোনার সন্তানদের হত্যা করে। বিশ্ব ইতিহাসে এ জাতীয় হত্যাকান্ড নজিরবিহিন। কিন্তু পাস্তিানী হানাদার বাহিনী ও তাদের দোষরদের এ অপ তৎপড়তা সফল হয়নি। সকল বাধা ছিন্ন করে বাংলাদেশ আবার মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে এবং একটি সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে যাচ্ছে।

ফরিদপুরের বিভিন্ন কলেজ ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে আলোচনা অনুষ্ঠানের আযোজন করা হয়।

সন্ধ্যায় শহরের শেখ জামাল স্টেডিয়ামের পাশে অবস্থিত গণকবওে দশ শত মোমবাতি প্রজ্বলন করা হয়। ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার, পুলিশ সুপার আলিমুজ্জামান, জেলা অওয়ামী লীগের সভাপতি সুবল চন্দ্র সাহা, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদেও সাবেক কমান্ডার আবুল ফয়েজ শাহনেওয়াজ প্রমুখ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া সন্ধ্যায় ফরিদপুর প্রথম আলো বন্ধুসভার উদ্যোগে শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় স্থাপিত শহীদের নাম সম্বলিত স্মৃতিসৌধে মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করা হয়। পরে বেদীর পাদদেশে আলোচনা সভা করে বন্ধুসভার সদস্যরা।