Sat. Dec 14th, 2019

উপমহাদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সিপাহ্সালার মোহন মিয়ার ৪৮ তম মৃত্যুবার্ষিকী

নিজস্ব সংবাদদাতা, ফরিদপুর টাইমস:
অবিভক্ত বাংলার মুসলিম জাগরনের অন্যতম পথিকৃত এবং উপমহাদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সিপাহ্সালার বিশিষ্ট জননেতা ইউসুফ আলী চৌধুরী মোহন মিয়ার ৪৮তম মৃত্যুবার্ষিকী ২৬ নভেম্বর মঙ্গলবার। এ উপলক্ষে মোহন মিয়া স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে দিনব্যাপী কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে।
মঙ্গলবার বাদ ফজর ফরিদপুর মুসলিম মিশনে কুরআন-এ-পাক ও কলেমা শরীফের খতম ও মিলাদ মাহ্ফিল এবং বিকেল ৩টায় ময়েজ মঞ্জিল প্রাঙ্গণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে।
ইউসুফ আলী চৌধুরী মোহন মিয়া এক বর্ণাঢ্য জীবনের অধিকারী ছিলেন। নিজে জমিদার হয়েও তিনি জমিদারী প্রথা বিলুপ্তির আন্দোলন করেছিলেন। সাধারণ মানুষের কাতারে সারাজীবন রাজনীতি করে জনপ্রিয়তার শীর্ষে উঠেছিলেন তিনি। তৎকালে অনগ্রসর মুসলিম জনগোষ্ঠীর সার্বিক উন্নয়নে একাধিক স্কুল, মাদ্রাসা, ছাত্রাবাস, দাতব্য চিকিৎসালয় ও মেয়েদের শিক্ষার জন্য মহিলা মাদ্রাসা স্থাপন এবং কৃষকদের আধুনিক চাষাবাদে উৎসাহিত করার লক্ষে ফরিদপুরের বায়তুল আমান ভোকেশনাল প্রজেক্ট স্থাপন করেন। মোহন মিয়ার জৈষ্ঠ পুত্র চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ একজন সাবেক মন্ত্রী ও সাবেক সংসদ সদস্য এবং বর্তমানে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান।
১৯৩৭ সালে মুসলিম লীগের মনোনয়নে বঙ্গীয় আইন সভার সদস্য ও ১৯৩৮ এ ফরিদপুর জেলা বোর্ডের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। ১৯৪১ থেকে ১৯৫৩ পর্যন্ত ফরিদপুর জেলা মুসলিম লীগের সভাপতি, ১৯৪১-১৯৪৭ পর্যন্ত বঙ্গীয় মুসলিম লীগ ওয়ার্কিং কমিটির সদস্য, ১৯৪৭ থেকে ১৯৫২ সালে পর্যন্ত পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং ১৯৫২ থেকে ১৯৫৩ পর্যন্ত পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম লীগের সভাপতি ছিলেন। ১৯৫৩ সালে মুসলিম লীগ থেকে বেরিয়ে এ কে ফজলুল হকের সাথে কৃষক-শ্রমিক পার্টিতে যোগ দেন। ১৯৫৭-৫৮ সালে কৃষক-শ্রমিক পার্টির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ১৯৫৪ তে যুক্তফ্রন্টের মনোনয়নে পূর্ববঙ্গ আইন পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন এবং যুক্তফ্রন্টের মন্ত্রীসভায় যোগ দেন। মন্ত্রীসভা ভেঙ্গে দিলে তিনি গ্রেফতার ও কারাবরণ করেন। ১৯৫৫ সালে কৃষক-শ্রমিক পার্টির মনোনয়নে পাকিস্তান গণ-পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৫২ সালে ঢাকায় বাংলা দৈনিক মিল্লাাত পত্রিকা (অধুনালুপ্ত) প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৭১ সালের ২৬ নভেম্বর হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে ইন্তেকাল করেন তিনি।