Mon. Oct 14th, 2019

সেই টাইগার উজ্জল এখন টাকার অভাবে বিনাচিকিৎসায় মৃত্যু পথযাত্রী

এনামুল খন্দকার, ফরিদপুর টাইমস:
একসময়ে গ্রামের হাডুডু কিংবা ফুটবল মাঠে টগবগে তরুণ উজ্জল শেখ (২৬) দুর্দান্ত খেলে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিতো। খেলার জন্য বাইরেও ডাক পড়তো। পরিচিতরা তাই তাকে ডাকতো ‘টাইগার’ বলে। আশেপাশের গ্রামেও তার নাম ছড়িয়ে পরেছিলো। তবে খেলতে গিয়ে কবে যে তার মেরুদন্ডের হাড় চিড়ে গেছে সেটি সময়মতো টের পায়নি। প্রায় বছরখানেক আগে তার মেরুদন্ডে চিরচির ব্যাথা হতে থাকে। তারপর ক্রমে পেশাব পায়খানায় সমস্যা। এখন সেই অসুস্থ্যতায় গত পাঁচ বছর যাবত শয্যাশায়ী সে। টাকার অভাবে চিকিৎসা হচ্ছে না। অথচ মাত্র দুই লাখ টাকার জোগাড় হলেই সুস্থ্য স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার সম্ভাবনা তার।

মধুখালী উপজেলার মেগচামী ইউনিয়নের চরমেগচামী গ্রামের দরিদ্র ভ্যানচালক শুকুর আলী শেখের দুই সন্তানের মধ্যে কনিষ্ঠ সে। পাঁচ বছর আগে বিয়ে করেছিলো তবে কোন সন্তান নেই। সহায়সম্বল বলতে মাত্র ৬ শতাংশের পৈত্রিক ভিটে ছাড়া আর কিছু নেই। বড় ভাই মোবাইল সার্ভিসিংয়ের কাজ করে। তার দরিদ্র পিতার পক্ষে চিকিৎসার এতো টাকা জোগাড় করাও সম্ভব না।

উজ্জলের পিতা শুকুর আলী শেখ জানান, ২০১১ সালে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিলেও টাকার অভাবে তার পড়াশুনা এগোয়নি। তারপর একটি জুটমিলে যোগ দেয়। একবছর আগে মেরুদন্ডে ব্যাথা শুরু হলে গ্রামের চিকিৎসকের থেকে ওষুধ খাচ্ছিলো। কিন্তু সাত মাস আগে অবস্থার অবনতি হলে তাকে নিয়ে ফরিদপুরের অ্যাপলো হাসপাতালে নিউরো সার্জন ডাক্তার আইয়ুব আনসারীর নিকট দেখাতে যান। চিকিৎসক জানান, তার মেরুদন্ডের হাড় ভেঙে রগ শুকিয়ে যাচ্ছে। ঢাকার বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কিংবা উন্নত কোন হাসপাতালে তার মেরুদন্ডের অপারেশন করাতে পারলে আরোগ্য লাভ সম্ভব। এজন্য মাত্র দুই থেকে আড়াই লাখ টাকার প্রয়োজন। কিন্তু এই চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন করা তাদের পক্ষে সম্ভব না।

উজ্জলের মা আছিয়া বেগম কাতরকন্ঠে তার ছেলের সুচিকিৎসা করানোর জন্য সকলের সহযোগীতার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, সবাই মিলে যদি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন তাহলে হয়তো আমার ছেলে আবারো সুস্থ্য হয়ে উঠবে। এজন্য সমাজের বিত্তবানদের নিকট উদাত্ত অনুরোধ জানিয়েছেন।

উজ্জলের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় একসময়ের মাঠ কাঁপানো এই তুখোড় খেলোয়ার এখন বিছানায় শয্যাশায়ী। পরিবারের সকলেই তাকে নিয়ে উদ্বিগ্ন। তাদের পরিবারে এখন চরম দুর্দিন নেমে এসেছে। সময়মতো চিকিৎসা না পেলে তাঁকে বাঁচানো যাবে না। দরিদ্র উজ্জলের কোন ব্যাংক হিসাব নেই। তবে মোবাইল ব্যাংকিং বিকাশ একাউন্টে তাকে সাহায্য করা যাবে। বিকাশ নম্বর- ০১৭৮৫৯৪৩৩৩৬