Fri. Sep 20th, 2019

প্রবীর শিকদারের বিচার দাবিতে ফরিদপুরে মহাসড়ক অবরোধ

নিজস্ব প্রতিবেদক, ফরিদপুর টাইমস:
ফেসবুকে সাংবাদিক প্রবীর শিকদারের ধর্মীয় উস্কানিমুলক মন্তব্য ও আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে জড়িয়ে একের পর এক প্রতিহিংসামুলক প্রচারণার প্রতিবাদে ও তার বিচার দাবিতে ফরিদপুরে মহাসড়ক অবরোধ করা হয়েছে। আজ রোববার বেলা ১১টা হতে সদর উপজেলাধীন কানাইপুরে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে প্রায় ৪০ মিনিট যাবত রাস্তার দুই পাশে দাড়িয়ে মহাসড়ক অবরোধ করা হয়। কানাইপুরের ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে প্রায় সহস্রাধিক নারী ও পুরুষ হাতে ব্যানার ও ফেস্টুন নিয়ে এসময় প্রবীর শিকদারের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে।

কানাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা বেলায়েত হোসেনের সভাপতিত্বে এসময় প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবল চন্দ্র সাহা তার বক্তব্যে বলেন, প্রবীর শিকদার ফরিদপুরের সাধারণ হিন্দু সমাজকে আজ মুখোমুখি দাড় করিয়ে দিয়েছেন। তিনি ফরিদপুরে একটি সাম্প্রদায়ীক অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির পায়তারা চালাচ্ছেন। কেউ তার কর্মকান্ডে সংক্ষুব্ধ হয়ে আইনগত প্রতিকার চাইলে ফরিদপুর বারের আইনজীবীগণ বিনামূল্যে তাকে আইনগত সহায়তা দেবে।

মহাসড়ক অবরোধ চলাকালে আরো বক্তব্য দেন কোতয়ালী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সদর উপজেলার চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক মোল্যা, জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক অনিশেষ রায়, শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজমুল ইসলাম খন্দকার লেভী, জেলা যুবলীগের সভাপতি এএচএম ফোয়াদ, কোতয়ালী থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কুমারেশ সাহা, কানাইপুর বাজার ব্যবসায়ী কমিটির নেতা অ্যাডভোকেট স্বপন সাহা, বেগম রোকেয়া স্কুলের শিক্ষক মোহসিন আলী, কানাইপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক রঞ্জন চক্রবর্তী, কানাইপুর বাজারের ব্যবসায়ী নেতা অ্যাডভোকেট দুলাল চন্দ্র সরকার, জনবিন্দু সাহা, শহিদুর রহমান, আরিফুজ্জামান চাঁদ, অনীল কুমার সাহা প্রমুখ।

প্রবীর শিকদার টাকার জন্য ব্ল্যাকমেইলিং করেন এবং এর স্বপক্ষে তাদের কাছে প্রমাণ রয়েছে বলে বক্তাগণ দাবি করেন। তারা বলেন, হাজার হাজার মানুষের বিরুদ্ধে তিনি এভাবে ফেসবুকে মিথ্যাচার করেছেন। যদি কেউ তার লেখায় ক্ষুব্ধ কোন কিছু করেন তবে তার দ্বায়ভার আওয়ামী লীগ নেবে না। তারা প্রবীর শিকদারকে তার কৃতকর্মের জন্য নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনার অনুরোধ জানান।

প্রায় ৪০ মিনিটযাবত এই মহাসড়ক অবরোধকালে কানাইপুর বাজারের উভয়পাশে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে যাত্রিবাহী বাসসহ কয়েক শ’ যানবাহন আটকা পড়ে। তিব্র গরমে নিদারুণ দুর্ভোগ পোহাতে হয় আটকে পড়া নারী, শিশু ও বৃদ্ধদের।

ফরিদপুরের কোতয়ালী থানার ওসি এএফএম নাসিম মহাসড়ক অবরোধের সত্যতা স্বীকার করে জানান, প্রায় ৪০ মিনিট পর অবরোধ তুলে নেয়া হয়। এখন যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

প্রসঙ্গত, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে জড়িয়ে এবং ধর্মীয় স্পর্শকাতর বিষয়ে উস্কানিমুলক মন্তব্য করার প্রতিবাদে প্রবীর শিকদারের বিরুদ্ধে গত বৃহস্পতিবার ফরিদপুরের সাধারণ হিন্দু সমাজের ব্যানারে মানববন্ধন ও কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়। এরপর গত শনিবার প্রবীর শিকদারের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়ীক উস্কানী দেয়ার অভিযোগ সংবাদ সম্মেলন করে ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগ। প্রবীর শিকদার বিরত না হলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা না নেয়া পর্যন্ত বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ কর্মসূচী অব্যাহত থাকবে বলে সংশ্লিষ্ঠ সূত্রে জানা গেছে।